করোনার সময় ৭০ হাজার প্রবাসী কর্মী দেশে ফেরত এসেছেন

প্রকাশিত: ১২:১১ পূর্বাহ্ণ , আগস্ট ২৩, ২০২০

করোনা মহামারি শুরুর পর গত ১ এপ্রিল থেকে ১৮ আগস্ট পর্যন্ত ৭০ হাজার ৪২৭ জন বাংলাদেশী কর্মী দেশে ফিরে এসেছেন।

বিমানবন্দরের প্রবাসী কল্যাণ ডেস্কের প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে। তাদের কেউ এসেছেন কাজ হারিয়ে, কেউ ভিসার মেয়াদ নবায়ন না হওয়ায়। আবার অনেকেই বিভিন্ন দেশে জেল থেকে ছাড়া পেয়ে ফিরেছেন।

ডেস্কের সহকারী পরিচালক ফখরুল আলম স্বাক্ষরিত প্রতিবেদনটি বৃহস্পতিবার প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে। প্রতিবেদন অনুযায়ী ২৩টি দেশ থেকে কর্মী ফেরত এসেছেন। সবচেয়ে বেশি কর্মী ফেরত এসেছে সংযুক্ত আরব আমিরাত থেকে ২৩ হাজার ৫০২ জন।

ফেরত আসা কর্মীদের মধ্যে তিন হাজার ৩০৮ জন নারী। সৌদি আরব থেকে সর্বোচ্চ এক হাজার ৭৬ জন নারী কর্মী ফেরত এসেছেন। এছাড়া, দেশটি থেকে সবমিলিয়ে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ১২ হাজার ৯৫০ জন ফেরত এসেছেন। তারা বিভিন্ন মেয়াদে কারাভোগ শেষে আউট পাস নিয়ে ফিরেছেন।

আরব আমিরাতে কাজ না থাকায় নিয়োগকারী প্রতিষ্ঠান কর্মীদের ফেরত পাঠিয়েছে। তাদের জানানো হয়েছে, পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে আবার তারা আরব আমিরাত যেতে পারবেন। তৃতীয় সর্বোচ্চ মালদ্বীপ থেকে ফিরেছেন সাত হাজার ৭৫৯ জন। পর্যটন নির্ভর মালদ্বীপে কাজ না থাকায় তাদের ফেরত পাঠানো হয়েছে।

কুয়েত থেকে ফেরত এসেছেন সাত হাজার ৩২৯ জন। তাদের ফেরত পাঠানো হয়েছে ভিসা ও আকামার মেয়াদ শেষ হওয়ায়। সাধারণ ক্ষমার আওতায় ফিরেছেন তারা। ওমান থেকে ফিরেছেন তিন হাজার ৬৪৫ জন। তারাও আউট পাস নিয়ে ফিরেছেন। সিঙ্গাপুর থেকে ফেরা এক হাজার ৩৮২ জনের ভিসার মেয়াদ শেষে নবায়ন হয়নি। তাই তাদের ফিরতে হয়েছে। কাতার থেকে ছয় হাজার ৬৮ জন ফিরেছেন চাকরি চলে যাওয়ায়। অন্য কাজ না পেয়ে তারা দেশে ফিরতে বাধ্য হয়েছেন। একই কারণে মালয়েশিয়া থেকে ফিরেছেন এক হাজার ৮৩৮ জন। ইরাক থেকে ফিরেছেন এক হাজার ৪১৯ জন।

ইতালি থেকে ফেরত এসেছেন ১৫১ জন। তারা গত ৬ জুলাই ইতালি ফিরে গিয়েছিলেন। করোনা সন্দেহে তাদের দেশে ফেরত পাঠানো হয়েছে। তুরস্ক থেকে ফেরত এসেছেন এক হাজার ৭৩০ জন। বৈরুতে বিস্ফোরণে বিধ্বস্ত লেবানন থেকে কাজ হারিয়ে ফিরেছেন ১২০ জন নারী কর্মীসহ ৫৬৪ জন বাংলাদেশী কর্মী। কাজ না পেয়ে ভিয়েতনাম থেকে ফিরেছেন ১২২ জন। কাজের মেয়াদ নবায়ন না হওয়ায় দক্ষিণ কোরিয়া থেকে ১০০ জন ফিরেছেন। কাজ না পেয়ে বিভিন্ন দেশ থেকে আরো দুই হাজারের মতো কর্মী ফেরত এসেছেন।